গুগলের বেতন কাটার ঘোষণা হোম অফিসে

|

বিশ্বের অন্যতম প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, স্থায়ীভাবে যারা বাসায় থেকে অফিসের কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাদের বেতন থেকে কিছু অংশ কাটা হবে।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স থেকে জানা গেছে, করোনা মহামারির আগে অফিসে বসে কাজ করতেন কর্মীরা। এখন যদি তারা স্থায়ীভাবে বাসায় বসে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে তাদের বেতন থেকে কাটা হবে। গুগলের এমন একটি ‘পে ক্যালকুলেটর’র স্ক্রিনশট পেয়েছে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স।

রয়টার্সের সংবাদে আরও জানা গেছে, বর্তমানে সিলিকন ভ্যালি বা প্রযুক্তি জগতে বাসায় বসে কাজ করলে বেতন কাটার উদ্যোগ নিয়েছে গুগল। এটা পরীক্ষামূলকভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

গুগলের পে ক্যালকুলেটর অনুযায়ী নির্ধারিত হবে কর্মীদের বেতন। এ বেতন কাটার বিষয়ে কোন কর্মী কোথায় থাকেন, সেখানকার জীবনমানের ব্যয়সহ বেশকিছু বিষয় দেখে বেতন নির্ধারিত হবে।

বেতন কাটার বিষয়ে গুগলের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, কর্মীদের আবাসস্থলের ওপর ভিত্তি করে বেতনের বিষয় নির্ধারণ করা হয়। একজন কর্মী কোথা থেকে ডিউটি করেন এর ওপর ভিত্তি করে গুগল কর্মীদের বেতন দেয়।

বেতন কাটা প্রসঙ্গে রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, কর্মীরা বেতন কাটার খবরে অনেকই অফিসে যাওয়া আরম্ভ করেছেন। অনেকেই বিষয়টি জেনে নেতিবাচক মতামত প্রকাশ করেছেন।

গত জুনে চালু করা গুগলের ‘ওয়ার্ক লোকেশন টুল’ অনুযায়ী এসব কর্মী যদি বাসায় বসে পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব পালন করেন, তাহলে তাদের বেতন শতকরা ১০ ভাগ কেটে নেয়া হতে পারে।

একজন কর্মী বাসায় বসে কাজের মাধ্যমকে বেছে নিয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছেন, অফিসে যেতে তার দুই ঘণ্টা সময় ব্যয় হয়। এখন তিনি বেতন কাটার কথা জানতে পেরে অফিসে বসে কাজ করতে আগ্রহী।








Leave a reply