নতুন করে চিনির দাম ঠিক করে দিলো সরকার

|

চিনির দাম নতুন করে নির্ধারণ করেছে সরকার। বিশ্ববাজারের সাথে দাম সমন্বয় করে দেশের বাজারে এখন থেকে প্রতি কেজি খোলা চিনি ৭৪ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনি ৭৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে মিল মালিকদের সঙ্গে এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আইআইটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এএইচএম সফিকুজ্জামন বলেন, চিনির দাম বেড়ে ৮০ টাকায় উঠেছিল। আমরা কেজিতে ৫ টাকা করে দাম কমিয়েছি। এখন থেকে খোলা বাজারে প্রতিকেজি চিনি ৭৪ টাকা এবং প্যাকেট চিনি ৭৫ টাকার মধ্যে বিক্রি করতে হবে। 

বিশ্ব বাজারে দাম বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে দেশের বাজারে গত আগস্ট থেকে চিনির দাম বাড়তে শুরু করে। সেসময় কেজিতে দশ থেকে বিশ টাকা পর্যন্ত দাম বৃদ্ধি পায় প্রতি কেজিতে

চিনি বিপণনকারী কোম্পানি সিটি গ্রুপ, মেঘনা গ্রুপ, দেশবন্ধু গ্রুপসহ অন্যান্য কয়েকটি কোম্পানির প্রতিনিধিরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। 

সরকার চিনির দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) থেকে পরবর্তী আদেশ না হওয়া পর্যন্ত প্রতিকেজি খোলা চিনি ৭৪ টাকা এবং প্যাকেট চিনি ৭৫ টাকা দরে বিক্রি করতে হবে। 

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে মিল মালিকদের বৈঠকে এ দাম নির্ধারণ করা হয়। বৈঠকে চিনি উৎপাদনকারী সিটি গ্রুপ, মেঘনা গ্রুপ, দেশবন্ধু গ্রুপসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এইচ এম সফিকুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, এই সিদ্ধান্ত আগামীকাল (শুক্রবার) থেকে কার্যকর হবে। 

সম্প্রতি খুচরা বাজারে প্রতিকেজি খোলা চিনি ৮০ টাকা এবং প্রতিকেজি প্যাকেট চিনির দাম ৮০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। এই প্রেক্ষাপটে প্রথমবারের মতো চিনির দাম বেঁধে দিয়েছে সরকার। 

এবার চিনির দাম বেঁধে দেয়া হলো। এখন থেকে প্রতি কেজি খোলা চিনির দাম ৭৪ টাকা ও প্যাকেট চিনির দাম ৭৫ টাকা। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে মিল মালিকদের বৈঠকে এ দাম নির্ধারণ করা হয়। এর আগে গেল সপ্তাহে সয়াবিন তেলের দামও নির্ধারণ করে দেয়া হয়। জানা গেছে, এরপর ডালের দামও নির্ধারণ করে দেবে সরকার।
বৈঠক শেষে অতিরিক্ত সচিব (আমদানি ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান সাংবাদিকদের দাম নির্ধারণের বিষয়টি জানান। এই সিদ্ধান্ত আজ শুক্রবার থেকে কার্যকর হবে বলেও জানান তিনি।
সম্প্রতি খুচরা বাজারে খোলা চিনি ৮০ টাকা এবং প্যাকেট চিনির দাম ৮০ টাকা কেজি ছাড়িয়ে যায়। এই প্রেক্ষাপটে প্রথমবারের মতো চিনির দাম বেঁধে দিলো সরকার।

তিনি বলেন, আমরা আগস্টের এলসির মূল্য বিবেচনায় নিয়ে এই দামটা ঠিক করেছি। গড়ে প্রতি টন ৪১৯ ডলার ধরে কাজ করেছি। আজকে বাজারে ঢুকলে দেখা যাবে যে প্রাইসটা প্রায় ৫০০ ডলারের কাছাকাছি চলে গিয়েছে। সে জন্য পূর্বাভাস করা মুশকিল। চিনির দাম প্রতি মাসে ঠিক করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
এই দামের ওপর ভিত্তি করে মিল গেট ও পাইকারি পর্যায়ে দাম আনুপাতিক হারে আমদানিকারকরা ঠিক করবেন জানিয়ে সফিকুজ্জামান বলেন, দাম কার্যকরের বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর তদারকি করবে। এক দিনেই হয়তো নতুন দামে পৌঁছানো যাবে না। তবে নতুন করে বাজারে যেসব চিনি আসবে সেগুলো নতুনভাবে নির্ধারিত দামেই বিক্রি করতে হবে।
আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই ডালের দামে হস্তক্ষেপ করা হবে জানিয়ে অতিরিক্ত সচিব বলেন, মহামারীর প্রভাবে এখন জাহাজের ভাড়া প্রায় ৩৬০ শতাংশ বেড়েছে। ডালের দামও বেড়েছে। পশ্চিমের যেসব দেশ থেকে আমরা এসব পণ্য সংগ্রহ করি সেখানে মহামারীর কারণে বাজার অস্থির। এসব বিষয় আমাদের মাথায় রাখতে হবে।
বৈঠকে চিনি উৎপাদনকারী সিটি গ্রুপ, মেঘনা গ্রুপ, দেশবন্ধু গ্রুপসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- বিশ্ববাজারে দাম বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে দেশের বাজারে চিনির দাম নতুন করে নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। আগামীকাল শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) থেকে পরবর্তী আদেশ না হওয়া পর্যন্ত প্রতি কেজি খোলা চিনি ৭৪ টাকা এবং প্যাকেট চিনি ৭৫ টাকা দরে বিক্রি করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে মিলমালিকদের বৈঠকে এ দাম নির্ধারণ করা হয়। বৈঠকে চিনি উৎপাদনকারী সিটি গ্রুপ, মেঘনা গ্রুপ, দেশবন্ধু গ্রুপসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

দেশের বাজারে প্রতি কেজি ৬০ টাকা থেকে ৬৫ টাকার মধ্যে ছিল চিনির দাম। তবে গত আগস্টের শুরু থেকে চিনির দাম বাড়তে থাকে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (আমদানি ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য) এএইচএম সফিকুজ্জামন বলেন, চিনির দাম বেড়ে ৮০ টাকায় উঠে গিয়েছিল। আমরা কেজিতে ৫ টাকা করে দাম কমিয়েছি। এখন থেকে খোলা বাজারে প্রতি কেজি চিনি ৭৪ টাকা এবং প্যাকেট চিনি ৭৫ টাকার মধ্যে বিক্রি করতে হবে।








Leave a reply