বিস্মিত তদন্তকারীরা, আরিয়ানের বান্ধবীর অন্তর্বাস-স্যানিটারি ন্যাপকিন থেকে উদ্ধার মাদক

|

মুম্বইয়ের (Mumbai) বিলাসবহুল ক্রুজ পার্টিতে অংশ নেওয়াকে কেন্দ্র করে এমন কাণ্ড যে ঘটবে তা বোধহয় নিজেও আশা করেননি শাহরুখ তনয় আরিয়ান (Aryan Khan)। যদিও এনসিবি’র চোখে ধুলো দিতে পারেননি তারকাপুত্র। ১৬ ঘণ্টা একটানা জেরার পর শেষমেশ গ্রেপ্তারই হন আরিয়ান। একই কাণ্ডে গ্রেপ্তার মুনমুন ধামেচা এবং আরবাজ মার্চেন্ট। এনসিবি’র জেরার মুখে ভেঙে পড়েন আরিয়ান। কেঁদে ফেলেন তিনি।

এনসিবি’র (NCB) জেরায় প্রথমে যদিও মাদক সেবনের কথা স্বীকার করেননি আরিয়ান। পরে যদিও জেরার মুখে ভেঙে পড়েন তিনি। জানান, চার বছর ধরে মাদক নেন শাহরুখপুত্র। দুবাই, লন্ডনে গিয়েও মাদক নিয়েছেন তিনি। এনসিবি আধিকারিকরা আরিয়ানের লেন্সের কৌটো থেকে মাদক বাজেয়াপ্ত করেছে। এই ঘটনায় ধৃত মুনমুন ধামেচার স্যানিটারি ন্যাপকিন এবং অন্তর্বাস থেকে প্রচুর পরিমাণ মাদক পেয়েছেন আধিকারিকরা।

এসব তথ্য হাতে আসার পরই আরিয়ানকে (Aryan Khan) গ্রেপ্তার করে এনসিবি। গ্রেপ্তারির পর মাত্র দু’মিনিট বাবা শাহরুখ খানের সঙ্গে কথা হয় তাঁর। কী কথা হল বাবা এবং ছেলের, সে বিষয়ে এখনও কিছু জানা যায়নি। তবে বাবার সঙ্গে কথা বলার সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন ‘অনুতপ্ত’ আরিয়ান। শাহরুখপুত্রের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৭, ৮সি-সহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। সোমবার এনসিবি’র আদালতে তোলা হবে তাঁকে। তার আগে শারীরিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে নিয়ে যাওয়া হয় আরিয়ানকে। জামিন মিলবে কিনা, তা আর কিছুক্ষণে মধ্যেই জানা যাবে।

অন্যদিকে, আরিয়ানের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ঘেঁটে শ্রেয়াস নায়ার (Sreyas Nair) নামে আরেকজনের নামও উঠে এসেছে। তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এনসিবি সূত্রে খবর, মুম্বই থেকে গোয়াগামী ক্রুজ পার্টির আগেও একাধিকবার শ্রেয়াসের সঙ্গে দেখা হয়েছে আরিয়ানের। বলিউড তারকার ছেলেকে মাদক সরবরাহ করতেন শ্রেয়াস। তাকে গ্রেপ্তারির সম্ভাবনাও রয়েছে। সূত্রের খবর, ধৃতদের একসঙ্গে বসিয়ে জেরাও করা হতে পারে। এছাড়াও মাদক কাণ্ডে আরও ৮ জনকে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে এনসিবি।








Leave a reply