ঐন্দ্রিলার প্রয়াতে শোকাহত বহরমপুর

|

টানা কুড়ি দিনের লড়াই শেষ। রবিবার প্রয়াত হলেন অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা। তাঁর মৃ/ত্যুর খবর পৌঁছতেই মুর্শিদাবাদের বহরমপুরে শোকের ছায়া। এই শহরেই ‌যে ছেলেবেলা কেটেছে তাঁর। বহরমপুর মহারানী কাশীশ্বরী গার্লস হাইস্কুলের ছাত্রী ছিলেন ঐন্দ্রিলা শর্মা। আর তার মৃ/ত্যুর খবর বহরমপুরে এসে পৌঁছতেই শোকের ছায়া নেমে আসে বহরমপুরের ইন্দ্রপ্রস্হ সহ বহরমপুর কাশীশ্বরী গার্লস হাইস্কুলে। বহরমপুরের ইন্দ্রপ্রস্হ এলাকার বাসিন্দা ঐন্দ্রিলা। মা মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র নার্স, বাবা চিকিৎসক। ১৯৯৮ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন ঐন্দিলা। ঐন্দ্রিলা শর্মা ও তার দিদি বহরমপুর কাশীশ্বরী গার্লস হাইস্কুলের ছাত্রী ছিলেন।২০১৫ সালে একাদশে ছাত্রী থাকা কালীন মা/রণরোগে আক্রান্ত হন। দুই বার ক্যান্সার আক্রান্ত হলেও তিনি তা পরাজিত করে আবার জীবন যুদ্ধে লড়াই করছিলেন। হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শনিবার রাতে একাধিকবার হার্ট অ্যাটাক হয়। যদিও রবিবার দুপুর একটা নাগাদ তার মৃ/ত্যুর খবর বহরমপুরের ইন্দ্রপ্রস্হ এলাকায় আসতেই শোকের ছায়া নেমে আসে। তিনি ‌যখন হাসপাতালে লড়াই চালাচ্ছিলেন বহরমপুর সহ গোটা মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন মন্দির ও গির্জায় প্রার্থনা করা হয় ঐন্দ্রিলা শর্মার জন্য। যা জানান সামাজিক মাধ্যমে তাঁর বন্ধু সব্যসাচী। তবে তার মৃ/ত্যুর ঘটনা বহরমপুরের ইন্দ্রপ্রস্হ আসতেই গোটা এলাকার বাসিন্দারা সহ বহরমপুর মহারানী কাশীশ্বরী গার্লস হাইস্কুল। টানা কুড়ি দিনের লড়াই শেষ হল তার। জীবানাবসান হল ঐন্দিলা শর্মার। মৃ/ত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে জীবনযুদ্ধে হেরে গেল ঐন্দ্রিলা শর্মা । বহরমপুর কাশীশ্বরী গার্লস হাইস্কুলের শিক্ষিকারা জানান, অত্যন্ত ভালো নৃত্য শিল্পী ও খেলা-ধুলা পারদর্শী ছিলেন। তবে আমরা ভেবেছিলাম এই লড়াইয়ে সে সারা দেবে। আমরা খুব মর্মাহত, শোকাহত তার অকাল প্রয়াণে।








Leave a reply