৫ লক্ষণ বলে দিতে পারে মিথ্যা বলছেন সামনের ব্যক্তি!

|

শরীরের অঙ্গভঙ্গি অনেক কিছুই বলে দিতে পারে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি সম্পর্কে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কথা বলার সময় কোনো ব্যক্তি সত্যি বলছেন না মিথ্যা, তা বোঝারও অন্যতম উপায় হতে পারে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি। কোনো ব্যক্তির বাচনভঙ্গি, কথা বলার সময়ে কোন দিকে তাকাচ্ছেন বা কথা বললে গলার স্বর বদলে যাচ্ছে কিনা তা দেখেই বলে দেওয়া যেতে পারে তিনি সত্যি বলছেন না মিথ্যা।

১। হাত নাড়ানো: বিশেষজ্ঞদের দাবি, সাধারণত যখন কোনো মানুষ সত্যি কথা বলেন তখন কথা বলার আগে বা কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে হাতের অঙ্গভঙ্গি বদল হয়। কিন্তু মিথ্যে কথা বললে কথা বলার কিছুক্ষণ পর বদল হয় হাতের অঙ্গভঙ্গি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মিথ্যে কথা বলার মানে, ওই ব্যক্তিকে কোনো কাল্পনিক ঘটনা নির্মাণ করতে হচ্ছে। তাই এতে মস্তিষ্কের স্বাভাবিক অনুসারী ক্রিয়া কিছুটা ব্যহত হয়। সে কারণেই দেরি হয় হাতের ভঙ্গিতে

২। দৃষ্টি: অনেক সময় যারা মিথ্যা কথা বলেন তাঁরা সরাসরি চোখের দিকে তাকাতে অস্বস্তি বোধ করেন। মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণা বলছে ৭০ শতাংশ ক্ষেত্রে মিথ্যে কথা বলার সময় সরাসরি চোখে চোখ রাখতে সঙ্কোচ বোধ করেন ব্যক্তি।

৩। নড়াচড়া: কথা বলার সময় সামনে-পিছনে দোলা কিংবা এক দিকে ঘাড় কাত করে রাখা মিথ্যা কথা বলার সংকেত হতে পারে। আবার কেউবা এক দিকের পায়ে ভর দিয়ে দাঁড়ান; বার বার ভিন্ন পায়ে ভর দিয়ে দাঁড়ানোও মিথ্যা বলার লক্ষণ হতে পারে।

৪। মুখভঙ্গি: কারো কারো মতে, ঠোঁট ভিতরের দিকে ঢুকিয়ে নেওয়া কিংবা ঠোঁট চেপে রাখার মতো বিষয় মিথ্যে কথা বলার লক্ষণ হতে পারে। বার বার ঢোঁক গেলা ও জিভ মুখের ভিতরে ঢুকিয়ে নেওয়াও মিথ্যা কথা বলার লক্ষণ হতে পারে।

৫। গলার স্বর: কথা বলার সময়ে গলার স্বরের আকস্মিক পরিবর্তন মিথ্যে কথার ইঙ্গিত হতে পারে। অনেকের মতে, মানসিক চাপ বৃদ্ধি পেলে কিছু কিছু ক্ষেত্রে স্বরযন্ত্র শক্ত হয়ে যেতে পারে। তাই মিথ্যে কথা বলার সময়ে যদি কারো মানসিক চাপ তৈরি হয়, তবে কথা বলতে গেলে গলার স্বর মোটা কিংবা সরু হয়ে যেতে পারে।

মনে রাখা দরকার, এই সবই তাত্ত্বিক কথা। বাস্তবে এ ধরনের লক্ষণ দেখে কোনো ব্যক্তি সত্যি বলছেন না মিথ্যা, তা নিশ্চিতভাবে বলা খুবই কঠিন। তাছাড়া প্রতিটি লক্ষণই অন্য অনেক কিছুর ইঙ্গিত হতে পারে। কাজেই এ ধরনের তত্ত্বের উপর দাঁড়িয়ে অন্ধভাবে সত্যি-মিথ্যা বিচার না করাই বিচক্ষণতার পরিচয়।








Leave a reply