অভিনেত্রী রানী মুখার্জি নিজেই জানালেন,স্বামীকে খুশি রাখতে রোজ রাতে কি করেন!

|

রানী মুখার্জি হলেন বলিউডের এক জনপ্রিয় অভিনেত্রী। অনেক হিট সিনেমা তিনি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের। সম্প্রতি ‘হিচকি’ ছবির মাধ্যমে তিনি আরও জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন। তার অভিনয়ের কারনে ছবিটি অনেক সাফল্য লাভ করেছে। সমস্ত অভিনেত্রীদের একটি আবশ্যক বিষয় হল তাদের সাজগোজ। কাজের জন্য সব সময় সেজে ফিটফাট রাখতেই হয় নিজেদের। কিন্তু রানী মুখার্জির গল্পটা একটু আলাদা।
‘হিচকি’ ছবির সাফল্যের পর দারুণ খুশি রানী মুখার্জি। এই খুশি সবার সঙ্গে ভাগ করে নেন তিনি। তাই সাংবাদিকদের জন্য ‘হিচকি’ ছবির ‘সাকসেস পার্টি’র আয়োজন করেন এই বলিউড সুন্দরী। এদিন সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কেক কাটেন। কিন্তু রানীর স্ত্রী সত্তা কখনো কখনো ছাপিয়ে যায় তাঁর অভিনেত্রী সত্তাকে। তিনি প্রযোজক-পরিচালক আদিত্য চোপড়ার স্ত্রী, তা সবারই জানা। আর রানী মনে করেন, অভিনেত্রী হওয়ার চেয়ে স্ত্রী হওয়া বেশি চাপের। সব সময় নিজের স্বামীকে খুশি রাখার কথা ভাবতে হয়।

একটি গনমাধ্যমের কাছে তিনি বলেন, তার জীবন অন্যান্য অভিনেত্রীর মতন নয়। তিনি অভিনয়ের জন্য যত না সাজগোজ করেন তার থেকে বেশি করেন নিজের স্বামীর জন্য। বাড়িতে থাকার সময় তিনি বিনা মেকআপেই থাকতে পছন্দ করেন। সারাদিন আর বাকি মহিলাদের মত সাধারণ ভাবেই থাকেন।

তিনি বলেন তার কাজ নিয়ে কোন চাপ নেই। বরং তার স্বামীকে নিয়ে তিনি বেশি চাপে থাকে। তার স্বামী আদিত্য চোপড়া। তিনি খুব সহজ মানুষ যে নন সেটা রানীর কথা শুনেই বোঝা যায়। রানীর সমস্ত কাজ ক্যামেরার সামনে হলেও ক্যামেরার সামনে আসতে একদম রাজি নন তার স্বামী।
ক্যামেরার সামনে আসা নিয়ে তার প্রবল আ’পত্তি। আ’দিত্য চোপড়া যেমন নিজে ক্যামেরার সামনে আসেন না তেমন তিনি পছন্দ করেন না যে তাদের একমাত্র কন্যা আদিরা ক্যামেরার সামনে আসুক। রানী মুখার্জি কিন্তু যেমন ভালো অভিনেত্রী তার থেকেও ভালো স্ত্রী তিনি।

তিনি সংসার সুখের রাখতে আর স্বামীকে খুশি রাখতে অনেক কিছু করে থাকেন। তিনি সিনেমায় কাজ করার জন্য যত না সাজেন তার থেকে বেশি সাজেন তার স্বামীকে খুশি করার জন্য। তিনি বলেন বিয়ের পর এটা জরুরি হয়ে দাঁড়ায় যে স্ত্রীকে যেন সুন্দর লাগে তার স্বামীর চোখে।

তিনি আরো বলেন যে আগে তিনি স্ত্রী, তারপর তিনি অভিনেত্রী। তার মতে, একজন স্বামী রাতে বাড়ি ফিরে কি দেখতে চান? একটা হাসিখুশি মুখ, আর বাড়ির সুন্দর বাতাবরণ। সেটাই যদি না থাকে তাহলে সংসার কখনো সুখের হতে পারেনা।
রোজ স্বামী যদি বাড়ি ফিরে দেখে বাড়ির পরিবেশ ভালো না, বা তার স্ত্রীকে খুব অগোছালো লাগছে তাহলে তার সারাদিনের ক্লান্তি দূর হবে কিকরে। তাই সংসার সুখের রাখতে স্ত্রীর নিজেকে যেমন ঠিক থাকতে হয় তেমন বাড়ির পরিবেশও ভালো রাখতে হয়।

তাই প্রতিদিন রাতে আদিত্যের বাড়ি ফেরার আগে তিনি মেকআপ করেন। যাতে তাকে তার স্বামীর চোখে সুন্দরী লাগে। মেকআপের সাথে সাথে তিনি সুন্দর পোশাকও পরেন। শুধু তাই নয়, রো’জ রা’তে রানীকে নিজের ঘর পরিষ্কার ও সাজাতে হয়।








Leave a reply