নৌকাডুবি!স্বয়ং দেশের রাষ্ট্রপতি জলে ঝাঁপিয়ে দুই মহিলাকে বাঁচালেন

|

বয়স তাঁর ৭১ বছর। কিন্তু বয়স তাঁর কাছে স্রেফ সংখ্যা। তিনি এই বয়সেও ঠিক সেসব কাজই করেন যা একজন কমবয়সী করতেও দুবার ভাববে! আর এবারও তিনি ঠিক তেমনই একখানা কাজ করলেন। দুজন মহিলা নেমেছিলেন সমু্দ্রে স্নান করার জন্য। কিছুক্ষণ স্নান করার পর দুই মহিলা ছোট একখানা নৌকা নিয়ে জলে নামেন। এর পরই ঘটে দুর্ঘটনা। নৌকা উল্টে যায়। গভীর জলে হাবুডুবু খেতে থাকেন দুই মহিলা। সাহায্যের জন্য চিৎকার করতে থাকেন। ঠিক সেই সময় দুই মহিলাকে বাঁচানোর জন্য জলে ঝাঁপ দেন স্বয়ং দেশের রাষ্ট্রপতি। শুনলে সিনেমার প্লট বলে মনে হলেও বাস্তবে এমনই হয়েছে।

পর্তুগালের ৭১ বছর বয়সী রাষ্ট্রপতি মার্সেলো রেবেলো দেশের পর্যটন শিল্পে অক্সিজেন জোগাতে চান। এমনিতেই করোনার জেরে পর্তুগালের পর্যটন শিল্প ধাক্কা খেয়েছে। তাই রাষ্ট্রপতি রেবেলো কিছুদিন উপকূলবর্তী অঞ্চলে থেকে দেশের পর্যটন শিল্প চাঙ্গা করার চেষ্টা করছেন। এদিন তিনি সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলেই ছিলেন। সেই সময় ওই দুই মহিলার নৌকা উল্টে যেতে দেখেন। তার পর এক মিনিটও দেরি না করে তিনি জলে ঝাঁপ দেন। সাঁতরে ওই দুই মহিলার কাছে পৌঁছে যান। ততক্ষণে আরও এক ব্যক্তি ওই মহিলাদের কাছে পৌঁছে যান। এর পরই রাষ্ট্রপতি ও সেই ব্যক্তি মিলে ওই দুই মহিলাকে উদ্ধার করেন।

রাষ্ট্রপতি রেবেলো জানিয়েছেন, তাঁরা যখন ওই দুই মহিলাকে উদ্ধার করেন তখন তাঁদের পেটে প্রচুর পরিমাণে সমু্দ্রের জল চলে গিয়েছিল। উঁচু ঢেউয়ের সামনে নৌকো সামলাতে পারেননি দুজন। ৭১ বছর বয়সী মার্সেলোর হৃদযন্ত্রের সমস্যা রয়েছে। তবুও তিনি ঝুঁকি নিয়ে মহিলাদের বাঁচান। পর্তুগালে এখন তাই মার্সেলোর প্রশংসা করছেন সবাই। তবে রাষ্ট্রপতি নিজে কিন্তু অন্য ব্যক্তির প্রশংসা করেছেন। সেই ব্যক্তি জেট স্কি নিয়ে ওই দুই মহিলার কাছে পৌঁছে যান। রেবেলো তাঁকে দেশভক্ত বলেছেন।








Leave a reply