আপনার কি রাতে ঘুম কম হচ্ছে?এই সমস্যাগুলি আপনার ত্বকেও দেখা দিতে পারে

|

রাতে পর্যাপ্ত ঘুম হলে তা শুধুমাত্র আপনার শরীরকেই ভাল রাখে না, পাশাপাশি আপনার সৌন্দর্যও বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে, কিন্তু ঘুমের অভাব আপনার সৌন্দর্যে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। ঘুমের অভাব হলে কিছু লক্ষণ আপনার মুখের মধ্যেই ফুটে ওঠে, যেমন – চোখে-মুখে ক্লান্তির ছাপ, চোখের নীচে কালি, ইত্যাদি।

ঘুম আপনার মন এবং শরীরকে চাঙ্গা করার জন্য সাহায্য করে । ভালো ঘুম হলে আমাদের ত্বকও পুনরুজ্জীবিত হয়ে ওঠে। তবে ঘুমের সমস্যা আমাদের ত্বককে প্রভাবিত করতে পারে এবং ব্রণ, ত্বক শুকিয়ে যাওয়া, ত্বকে অ্যালার্জি ইত্যাদির মতো বিভিন্ন সমস্যাগুলিকে বাড়াতে পারে।

আজকের এই নিবন্ধে, আমরা জানাবো যে ঘুমের সমস্যা কীভাবে আমাদের ত্বকের ক্ষতি করতে পারে এবং সৌন্দর্যের ক্ষেত্রে এর বিরূপ প্রভাবগুলি কী।

১) ত্বকে ব্রণ, পিম্পল হতে পারে

ঘুমের অভাবের আরও একটি বড় প্রভাব হল – ত্বকে ব্রণ, পিম্পল ইত্যাদি হওয়া। ঘুমের অভাব প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয় এবং এর ফলে ত্বকে ব্রণ সৃষ্টিকারী ব্যাকটিরিয়াগুলির বাড়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। এছাড়াও, ঘুমের অভাবের কারণে ত্বকের প্রদাহ বৃদ্ধি পায়।

২) ত্বকের উজ্জ্বলতা হারায়

ঘুমের অভাবে করটিসলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। এটি একটি হরমোন যা, ত্বকে প্রদাহ সৃষ্টি করে এবং ত্বককে নিস্তেজ করে তোলে। অতএব, যখন পর্যাপ্ত ঘুম না হয় তখন আমাদের ত্বক উজ্জ্বলতা হারিয়ে ফেলে এবং নিস্তেজ ও শুষ্ক হয়ে যায়।

৩) ত্বকের কন্ডিশন খারাপ হতে পারে

ঘুমের সমস্যার কারণে কেবলমাত্র ব্রণ, পিম্পলই হয় না, আপনার ত্বকের কন্ডিশনও খারাপ হতে পারে। সুতরাং, আপনি যদি ব্রণ বা অন্য কোনও ত্বকের সমস্যায় ভুগছেন তবে আপনার ঘুম সম্পর্কে কঠোর হওয়া দরকার। রাতে ভালো ঘুম হলে ত্বক দ্রুত নিরাময় হবে।

৪) শুষ্ক ত্বক

সঠিক ঘুম হলে শরীর হাইড্রেটেড থাকে এবং যদি সঠিক ঘুম না হয় তবে ত্বক শুষ্ক হতে পারে এবং ত্বকের আরও নানান সমস্যা দেখা দেয়।

৫) ত্বকের বার্ধক্য দ্রুত বৃদ্ধি পায়

ত্বককে সতেজ করতে এবং স্বাস্থ্যকর রাখতে সঠিক ঘুম জরুরি। কম ঘুম ত্বকে কোলাজেনের উৎপাদন হ্রাস করে এবং ত্বকের বার্ধক্যজনিত লক্ষণগুলি ফুটে উঠতে পারে।

৬) ওজন বৃদ্ধি হতে পারে

আপনার কাছে এটি শুনতে অদ্ভুত লাগতে পারে তবে এটি সত্য যে, ঘুমের সমস্যা আপনার ওজনকে প্রভাবিত করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, ঘুমের অভাব আমাদেরকে স্থূলত্বের দিকে পরিচালিত করে। কারণ, ঘুমের অভাব আরও বেশি ক্ষুধার্ত করে তোলে। এই সমস্ত কিছু আমাদের ওজন বাড়াতে পারে।

৭) চোখের তলায় কালি

চোখের নীচের এলাকাটি বেশ সংবেদনশীল এবং এটি সহজেই আক্রান্ত হয়। ঘুমের অভাবের সর্বাধিক দৃশ্যমান প্রভাবগুলির সাধারণত চোখের নীচের অংশেই প্রতিফলিত হয়। সাধারণত চোখের তলায় কালি বেশি দেখা যায়। এটি আপনার পুরো চেহারাকে নষ্ট করতে পারে, তাই এগুলি হালকাভাবে নেওয়া উচিত নয়।








Leave a reply