পাইলস ও ডায়বেটিসের মতো অনেক রোগের জন্য কার্যকারি ঔষধ হলো দুর্বা ঘাস

|

আপনি যদি ঘাসের উপকারিতা সম্পর্কে আমাদের সাথে কথা বলেন, তবে আপনি এর কার্যকারিতা সম্পর্কেও জানতে পারবেন। দুটি – চারটি জিনিস যথেষ্ট, তবে বারমুডা ঘাস এমন একটি ঘাস যা অনেক রোগের জন্য কার্যকারি একটি ঔষধ । বারমুডা ঘাস গাদা, চর্মরোগ, চোখের সমস্যা, জরায়ু, কুষ্ঠরোগ, রক্তক্ষরণ এবং স্ত্রীরোগ সংক্রান্ত সমস্যায় খুব উপকারী। বারমুডা ঘাসটি দুর্বা ঘাস বা ডুব নামেও পরিচিত, যা ভারতের মতো একটি দেশে একটি পবিত্র উদ্ভিদ হিসাবে বিবেচিত হয়। যায়। তবে এটি অনেক রোগ এড়াতে ব্যবহৃত হয়। হাজার হাজার বছর ধরে, বারমুডা ঘাসের ঔষধি এবং ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্যগুলি আয়ুর্বেদ এবং সিদ্ধ ঔষধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

মাইউপচারের সাথে যুক্ত ডক্টর লক্ষ্মীদত্ত শুক্লা বলেছেন যে স্বাস্থ্যের সাথে সম্পর্কিত বৈশিষ্ট্যের কারণে এই ঘাস প্রচুর জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। দুর্বা ঘাসে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ফাইবার, পটাসিয়াম এবং প্রোটিন রয়েছে। এটি অনেক রোগ থেকে মুক্তি দেয়। আসুন আমরা আপনাকে বলি কোন রোগে এটি ব্যবহৃত হয়।

১.পাইলস:

 গরুর ঘি নিন এবং ঘাসের নির্যাসের সাথে মিশ্রিত করুন এবং আক্রান্ত স্থানে এটি উপকারের জন্য প্রয়োগ করুন। এগুলি ছাড়াও মহিলাদের ক্ষেত্রে এই ঘাসটি দইয়ের সাথে গ্রহণ করলে ভাল ফলাফল পাওয়া যায়।

২.চর্মরোগ: 

চুলকানি, কুষ্ঠরোগ, ত্বকের ফুসকুড়ি এবং একজিমা জাতীয় ত্বকের ব্যাধি থেকে মুক্তি পেতে হলুদের গুঁড়োর সাথে হলুদ পেস্ট মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে লাগান।

৩.মাথা ব্যথা: 

সম পরিমাণে ঘাস এবং চুন নিন এবং জল দিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। কপালে পেস্ট লাগিয়ে নিন এবং তাৎক্ষণিকভাবে স্বস্তি পাবেন।

৪.হজম: 

হজম উন্নতি এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা ছাড়াও এই ঘাস পেটের রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। একে প্রাকৃতিক ডিটক্সিফায়ারও বলা যেতে পারে, যা শরীর থেকে টক্সিন নষ্ট করে।

৫.ডায়রিয়া: 

তাজা দুর্বা ঘাসের পানীয় পান ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ করা সহজ করে তোলে।

৬.প্রস্রাব সম্পর্কিত সমস্যা:

 এই ঘাসের শিকড়গুলির চা তৈরি করুন এবং একটি চুমুকের মধ্যে ৩০ মিলি পান করুন।

৭.চক্ষু রোগ: 

দুর্বার একটি পেস্ট তৈরি করে চোখের পাতায় লাগান। এটি চোখ থেকে ময়লা বের হওয়া রোধে খুব উপকারী হবে।

৮.মুখ সম্পর্কিত ক্ষত:

 মুখের আলসার নিরাময়ে সহায়তা করে। এটিতে অ্যান্টি আলসার বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই ঘাস কেবল রক্তপাতের মাড়ির চিকিৎসায় সহায়তা করে না, দুর্গন্ধের সাথে লড়াইও করে।

৯.নাক সম্পর্কিত সমস্যা:

 ডালিম ফুলের নির্যাস নিন এবং এটি দুর্বা ঘাসের নির্যাসের সাথে মিশ্রিত করুন। সঙ্গে সঙ্গে রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে এক থেকে দুই ফোঁটা নাকের ছিদ্রে রাখুন, এক থেকে দু ফোঁটা দুর্বার রস নাকের মধ্যে রেখে দিন।

১০.ইমিউন সিস্টেম: 

দুর্বা ঘাসে একটি প্রোটিন সামগ্রী রয়েছে যা ইমিউনোমডুলেটরিটি কার্যকলাপের জন্য পরিচিত। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে সহায়তা করে। এর অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলি প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে।

১১.স্ট্রেস রিলিফ: 

কোচ ঘাসে হাঁটা দিয়ে স্ট্রেস হ্রাস হয়। এছাড়াও, চাপ থেকে মুক্তি দিতে, এই ঘাসের একটি পেস্ট পায়ের তলগুলিতেও প্রয়োগ করা হয়।

১২.ক্ষতের জন্য: 

বারমুডা ঘাস এবং ঘাটিতে বেঁধে তৈরি রসুনের পেস্ট স্বস্তি সরবরাহ করে।

১৩.ডায়াবেটিসের জন্য:

 অনেক গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে এই ঘাসের উত্তোলনের ফলে ডায়াবেটিস রোগীদের উপর হাইপোগ্লাইসেমিক প্রভাব রয়েছে যা রক্তে গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। দুর্বর রসের সাথে নিম পাতার রস রক্তের গ্লুকোজ স্তরকে স্বাভাবিক করে তোলে।








Leave a reply